সৈনিক শিক্ষা রচনা – Military Education Essay in Bengali

0
60

সৈনিক শিক্ষা রচনা – Military Education Essay in Bengali : প্রিয় শিক্ষার্থীরা, আজ আমরা সাসৈনিক শিক্ষা রচনা বলব, অর্থাৎ বর্তমান সময়ে বাধ্যতামূলক সৈনিক শিক্ষার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা নিয়ে শিশুদের জন্য হিন্দি রচনা। ক্লাস 1, 2, 3, 4, 5, 6, 7, 8, 9, 10 এর শিক্ষার্থীরা সৈনিক বিষয়ে 5, 10 লাইন, 100, 200, 250, 300, 400, 500 শব্দের এই রচনাটি সহজেই লিখতে পারবে।

সৈনিক শিক্ষা রচনা – Military Education Essay in Bengali

Military Education Essay in Bengali

স্বেচ্ছাসেবী সৈনিক শিক্ষা সমাজে অনেক দৃষ্টিকোণ থেকে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যদি এখানে উত্তর কোরিয়া এবং ইসরায়েল এই দুটি দেশ সম্পর্কে বলি, তাহলে এখানে সমস্ত নাগরিকদের সৈনিক প্রশিক্ষণ নেওয়া বাধ্যতামূলক বলে মনে করা হয়। 18 থেকে 21 বছর বয়সী তরুণীদের সেনাবাহিনীতে তাদের বিনামূল্যে পরিষেবা দিতে হবে।

এই ধরনের কঠোর সৈনিক প্রশিক্ষণের প্রয়োজন হয় না এবং আমাদের দেশে এটি একটি সঠিক ঐতিহ্য হিসাবে বিবেচিত হয় না। তবে যারা স্বেচ্ছায় সৈনিক শিক্ষা অর্জন করতে চান তাদের জন্য এই সুযোগটি সহজলভ্য করা উচিত। এই ধরনের প্রশিক্ষিত যুবকরা দেশের রিজার্ভ আর্মির মতো মূল্যবান সম্পদে পরিণত হয়, তারা জাতীয় নিরাপত্তার যেকোনো জরুরি পরিস্থিতিতে জাতীয় স্বার্থে ব্যবহার করা যেতে পারে।

ভূমিকা

সৈনিক শিক্ষার প্রাচীন রূপ – বর্ণাশ্রম পদ্ধতি ছিল ভারতীয় সংস্কৃতির একটি মহৎ ঐতিহ্য। তাদের মধ্যে সমাজ ব্যবস্থা ছিল বর্ণ, বর্ণ ও কর্ম অনুসারে। সৈনিক শিক্ষা শুধুমাত্র রাজকুমার ও ক্ষত্রিয়দের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল।

এটা বিশ্বাস করা হয়েছিল যে দেশের নিরাপত্তার ভার কেবল তার কাঁধে। সৈনিক প্রশিক্ষণের জন্য, সমস্ত ছোট রাজ্যে সৈনিক স্কুল এবং আচার্যদের নিশ্চিত করা হয়েছিল। প্রশিক্ষণের সময়কালও নির্ধারিত ছিল। এই সময়ের পরে একজন যুবক একজন যোগ্য যোদ্ধা হয়ে ওঠে।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে সৈনিক শিক্ষার প্রয়োজন- বর্তমান পারমাণবিক যুগে ব্যক্তি ও জাতি উভয়ের জন্যই সৈনিক শিক্ষা অপরিহার্য। এখানে এই উভয় মতের উপর আলোকপাত করা হচ্ছে।

জাতি

একটি স্বাধীন সার্বভৌম জাতির দৃষ্টিকোণ থেকে ভারতে সৈনিক শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। আমরা যদি চাই যে কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও, শহর ও গ্রামে সৈনিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র খোলা উচিত, যাতে ভারতের যুবকরা প্রয়োজনের সময় এবং প্রয়োজনে জাতির প্রতিরক্ষার জন্য স্থায়ী সেনাবাহিনীকে আনন্দের সাথে পূর্ণ সমর্থন প্রদান করতে পারে। যদি তাই হয়, তিনি সুখে মারা যেতে পারেন।

ব্যক্তি

বাধ্যতামূলক সৈনিক শিক্ষার পরিকল্পনাটিও ব্যক্তির দৃষ্টিকোণ থেকে একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনা। একটি সুস্থ শরীরে একটি সুস্থ মন থাকে। দেশের নাগরিকদের স্বাস্থ্য ভালো থাকলে তারা দেশের প্রতি তাদের দায়িত্ব ভালোভাবে পালন করতে পারবে। সৈনিক শিক্ষা তাদের শরীরকে শক্তিশালী ও শক্তিশালী করবে এবং শৃঙ্খলা জীবনের মূল মন্ত্র হয়ে উঠবে।

সৈনিক শিক্ষার প্রচার

স্বাধীনতার পর ভারত সরকার এ দিকে বিশেষ নজর দিয়েছে। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের সৈনিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণির জন্য এনসিসি এবং স্নাতক স্তরের শ্রেণির জন্য সিনিয়র এনসিসি কোর্স নিশ্চিত করা হয়েছে।

তবে এই বিষয়টি বাধ্যতামূলক হওয়া উচিত, যাতে সমস্ত শিক্ষার্থী এটি থেকে উপকৃত হতে পারে। সমগ্র জাতিকে শক্তিশালী করতে হলে দেশের প্রতিটি শহরে ও গ্রামে একটি করে সৈনিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থাকা প্রয়োজন। দেশের প্রতিটি প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ যখন বলিষ্ঠ সৈনিক হয়ে উঠবে, তখন দেশরক্ষার জন্য ত্যাগ-তিতিক্ষার চেতনা তীব্রতর হবে।

উপসংহার

অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক আক্রমণ থেকে জাতিকে রক্ষা করার পাশাপাশি নাগরিকদের ব্যক্তিগত শারীরিক, মানসিক ও নৈতিক উন্নতির জন্য সৈনিক শিক্ষা অপরিহার্য। উদ্যোক্তা, পরিশ্রমী ও আত্মনির্ভরশীল করতেও এই শিক্ষা কার্যকর। সন্ত্রাসীদের দমনে সীমান্তের নিরাপত্তার পাশাপাশি বাধ্যতামূলক সৈনিক শিক্ষার প্রসার প্রয়োজন।

Paragraph on Compulsory Training Essay on Military Education in Bengali 500 Words

আমাদের দেশ শত শত বছর স্বাধীনতার শৃঙ্খলে রয়ে গেছে। ভারতের স্বাধীনতার জন্য 100 বছর ধরে চলা স্বাধীনতা সংগ্রামে কত দেশপ্রেমিক জীবন দিয়েছিলেন তা জানা নেই। তবেই আমরা স্বাধীনতা পেতে পারি। আজ স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে দেশের সীমান্ত রক্ষা করাই আমাদের প্রথম কর্তব্য। দেশের স্বাধীনতা ও স্বায়ত্তশাসনের জন্য আমাদের প্রতি মুহূর্তে সজাগ থাকতে হবে, তা না হলে সেই দিন দেখতে হবে না যেদিন ভারত আবার দাসত্বের শৃঙ্খলে আটকে যাবে।

যেহেতু আমাদের দেশ আয়তনের দিক থেকে অনেক বিশাল। অনেক প্রতিবেশী দেশের সাথে আমাদের সীমান্ত রয়েছে। কিছু ভাল বন্ধু এবং কিছু বিশ্বস্ত প্রতিবেশীও আমাদের চারপাশে রয়েছে। আমরা ইতিমধ্যে চীন ও পাকিস্তানের ডিএন পরীক্ষা করেছি। শত্রু দেশের মতো, তারা ভারতে গর্ত করার চেষ্টা করে, কখনও তারা আক্রমণের হুমকি দেয় এবং কখনও তারা আক্রমণ করতে সন্ত্রাসী পাঠায়।

আজকের যুগকে পরমাণু যুগ বলা হলেও আজও কোনো দেশ সৈনিক শিক্ষার গুরুত্বকে উপেক্ষা করতে পারে না। পারস্পরিক দ্বন্দ্ব ও অস্থিরতার পরিবেশে দেশের সীমান্ত ও অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার জন্য সৈনিক শিক্ষা জরুরি।

এটাও সম্ভব নয় যে দেশের সীমান্তের প্রতিটি কোণায় সৈন্য মোতায়েন করা উচিত কারণ শান্তির সময়ে বিশাল সেনাবাহিনী রাখা কোনো দেশের পক্ষে সম্ভব নয়। অতএব, আমাদের দেশে এমন একটি সেনাবাহিনীর প্রয়োজন যা প্রয়োজনে দেশ রক্ষার জন্য প্রস্তুত থাকবে, এটি কেবল স্কুলে বাধ্যতামূলক সৈনিক শিক্ষার মাধ্যমেই সম্ভব।

সারা দেশে সৈনিক শিক্ষার অনেক রূপ রয়েছে। কিছু স্কাউট এবং কিছু এনসিসি ক্যাম্প আয়োজন করে শিক্ষার্থীদের এ জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এসব কর্মসূচিতে শিক্ষার্থীদের সুশৃঙ্খল জীবন ও সৈনিকের কঠোর অনুশীলন থেকে বের করে আনা হলেও অস্ত্রের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় না। এর পাশাপাশি তাদের সৈনিক গোয়েন্দা ব্যবস্থার জন্যও প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

উপসংহার

আশা করি সৈনিক শিক্ষা রচনা – Military Education Essay in Bengali এই নিবন্ধটি আপনার পছন্দ হয়েছে, যদি আপনি এই তথ্যগুলি পছন্দ করেন তবে আপনার বন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here