মহাত্মা গান্ধীর জীবনী – Mahatma Gandhi Biography in Bengali

0
41

মহাত্মা গান্ধীর জীবনী – Mahatma Gandhi Biography in Bengali : জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধীকে কে না জানে? সত্য ও অহিংসার মূর্তি যারা ভারতের স্বাধীনতার জন্য তাদের সমগ্র জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। কাঠের লাঠিতে হেঁটে আসা গান্ধী বাবা সত্যিকারের অহিংসাকে অস্ত্র বানিয়ে কোটি কোটি হিন্দুর সাথে স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছিলেন। তাদের আত্মত্যাগের কারণেই আজ আমরা মুক্ত পরিবেশে নিঃশ্বাস নিচ্ছি। পৃথিবী নিজেই এমন মহান আত্মার জন্ম কামনা করে। মানবতা ও হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের উদাহরণ হয়ে ওঠা মহাত্মা গান্ধীর জীবনে কিছুই ছিল না। যাদের ক্ষমতা পাওয়ার কোনো লোভ ছিল না। যদি সুন্দর হতো তাহলে দেশ ও স্বাধীনতা। এমন অনুপ্রেরণাদায়ী মহাপুরুষ মহাত্মা গান্ধীর জীবনী ও ইতিহাসে তাঁর জীবনের সাথে সম্পর্কিত মূল ঘটনাগুলির উপর আলোকপাত করার একটি ছোট্ট প্রয়াস করা হয়েছে।

মহাত্মা গান্ধীর জীবনী – Mahatma Gandhi Biography in Bengali

Mahatma Gandhi Biography in Bengali

 জীবন পরিচয় বিন্দু  মহাত্মা গান্ধীর জীবনী
 পুরো নাম  মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী
 ধর্ম  হিন্দু
 জন্ম  2 অক্টোবর 1869
 জন্ম স্থান  পোরবন্দর, গুজরাট
 মা বাবা করমচাঁদ গান্ধী, পুতলিবাই
 বিবাহ কস্তুরবা গান্ধী (1883)
 শিশুরা হরিলাল, মণিলাল, রামদাস, দেবদাস
 রাজনৈতিক দল  ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস

গান্ধীর জীবনী ও ইতিহাস

আজ এই ব্যক্তিত্বের কথা কে না জানে, দেশের শিশুরা জানে মহাত্মা গান্ধীর আত্মজীবনী, গান্ধীজির পুরো নাম ছিল মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী। তিনি 1869 সালের 2 অক্টোবর গুজরাটের পোরবন্দর শহরে জন্মগ্রহণ করেন। সে সময় এই প্রদেশটি বোম্বে প্রেসিডেন্সির অধীনে আসে।

তাঁর পিতার নাম করমচাঁদ গান্ধী যিনি পানসারি বর্ণের ছিলেন। তিনি ব্রিটিশ সরকারে দিওয়ানের দায়িত্ব পালন করছিলেন। তাঁর মায়ের নাম পুতলিবাই। যারা মধ্যবিত্ত থেকে এসেছেন। গৃহিণী হিসেবে কাজ করতেন। প্রকৃতপক্ষে পুটলিবাই ছিলেন করমচাঁদ গান্ধীর চতুর্থ স্ত্রী। তার আগে তিনজন স্ত্রী মারা গেছেন।

মহাত্মা গান্ধীর প্রাথমিক জীবন

উগ্র হিন্দু মতাদর্শের একটি পরিবারে জন্ম নেওয়া গান্ধীর জীবনও ধর্মীয় পরিবর্তনের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল। তার মা ছিলেন একজন ধার্মিক মহিলা। তাঁর পিতা করমচাঁদ গান্ধীও কাবা গান্ধী নামে পরিচিত। যদিও তারা শিক্ষিত ছিল না। কিন্তু জীবনের কঠোর অভিজ্ঞতা তার মধ্যে এই ধরনের শিক্ষাকে প্রভাবিত করেছিল। যার দ্বারা তারা স্বার্থ ও ক্ষতি খুব ভালো করেই জানতেন।

তিনি চাননি তার ছেলে মোহনচাঁদ এই ব্রিটিশ শাসনের বাসিন্দা হোক। এতে তিনি মোহনদাসকে স্থানীয় সামলাল কলেজে ভর্তি করিয়ে দেন। যেখান থেকে, গান্ধীকে তার স্কুলের পড়া শেষ করার পর আরও পড়াশোনার জন্য বোম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো হয়।

পড়াশুনা শুরু থেকেই তার ভালো লাগেনি, এর কারণ ছিল ইংরেজি ভাষা। তারা ইংরেজি এবং তাদের মাতৃভাষা গুজরাটিতে পুরোপুরি ভারসাম্য রাখতে সক্ষম হয়নি। ছোটবেলা থেকেই গান্ধীর হাতের লেখা ভালো ছিল না। তার মন ছিল অন্য জায়গায়। কিন্তু পরিবার চাইছিল অন্য কিছু। মহাত্মা গান্ধী প্রথম থেকেই অত্যন্ত সংবেদনশীল ব্যক্তি ছিলেন। মানুষের কষ্টই ছিল তাদের কাছে সবচেয়ে বড় যন্ত্রণা। এটি কমাতে তিনি ডাক্তার হতে চেয়েছিলেন।

কিন্তু তার গোত্রের ধর্মান্ধ ব্রাহ্মণ্যবাদী চিন্তাধারা এ ধরনের কর্মকাণ্ডকে মোটেও অনুমতি দেয়নি। তার পারিবারিক ঐতিহ্য অনুসারে তাকে আইনজীবী হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতে নিম্ন শিক্ষার স্তর ছিল নিম্নমানের। তাই বাবা-মা মহাত্মা গান্ধীকে ইংল্যান্ডে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেন।

গান্ধীর আফ্রিকা সফর এবং ভারতে ফিরে আসা

গান্ধীর বয়স যখন 19 বছর, কলেজে আগ্রহের অভাবের কারণে, তিনি ইংল্যান্ডে যাওয়ার প্রস্তাব পান। যা গান্ধী সানন্দে মেনে নেন। আইন পড়তে যাওয়ার আগে এক জৈন সন্ন্যাসীর সঙ্গে দেখা হয় তার। কয়েকদিন একসঙ্গে থাকার পর তাদের মধ্যে অনেক প্রভাব পড়ে। এ ছাড়া মায়ের চিন্তাধারা তাদের জীবনযাত্রায় প্রভাব ফেলে। লন্ডনে থাকার সময় তার নিরামিষ জীবনযাত্রায় ব্যাপক পরিবর্তন আসে।

ইংরেজ রীতি ও রীতি থেকে সম্পূর্ণ আলাদা এবং নিরামিষভোজী ও সন্ন্যাসী হিসেবে জীবনযাপন শুরু করেন। বোধ ধর্মের একটি সংগঠন থিওসফিক্যাল সোসাইটিতে যোগদান করেন এবং এর সাথে কাজ করতে থাকেন।

লন্ডন থেকে ব্যারিস্টারি ডিগ্রি অর্জনের পর মুম্বাই ফিরে আসেন। এখানে তিনি বহুবার অনুশীলন করেছেন। কিন্তু এখানে খুব একটা সফলতা পায়নি তারা। একজন ইংরেজ অফিসারের অবহেলার কারণে গান্ধী এই চাকরি হারান, তারপর একটি প্রতিষ্ঠান তাকে শিক্ষক হিসেবে আমন্ত্রণ জানায়। কিন্তু গান্ধী তার ইচ্ছা প্রকাশ না করে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন।

সে সময় দক্ষিণ আফ্রিকাতেও ব্রিটিশ সরকার ছিল। তাই আত্মীয়দের আমন্ত্রণে মহাত্মা গান্ধী দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যান। কিন্তু এখানে তাকে কী সম্মুখীন হতে হয়েছে, তার বর্ণনা মহাত্মা গান্ধী জীবনীতে আরও দেওয়া হয়েছে।

জীবনের ঘটনা

মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী যদি দক্ষিণ আফ্রিকা ভ্রমণ না করতেন, তাহলে হয়তো তিনি মহাত্মা গান্ধীও হতেন না। 1895 সালে গান্ধীজি যখন আফ্রিকা সফর করেন, তখন সেখানে ব্রিটিশ শাসন ছিল। যিনি বাসিন্দা ও ব্রিটিশদের মধ্যে বর্ণবৈষম্যের প্রাচীর তৈরি করেছিলেন।

সর্বক্ষেত্রে সাদা-কালো মানুষের মধ্যে বৈষম্য ছিল। এমনকি তারা একই বসতিতে থাকতে পারেনি। গান্ধীজি যখন দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম পা রাখেন। তাই তাকে বর্ণবাদের শিকার হতে হয়েছে।

একটি ঘটনা যা আরাঙ্গেনোর প্রতি ক্ষোভকে পূর্ণ করে। তারা যখন ট্রেনে যাতায়াত করছিলেন। তারপর প্রথম শ্রেণির বৈধ টিকিট থাকা সত্ত্বেও বগিতে থাকা সাদারা তাকে তৃতীয় শ্রেণিতে যেতে বলে। মহাত্মা গান্ধী এর বিরোধিতা করলে কিছু শ্বেতাঙ্গ লোক তাকে তুলে নিয়ে চলন্ত গাড়ি থেকে ফেলে দেয়।

তখন গান্ধীর পোশাক ছিল ধুতি কুর্তা ও পাগড়ি। শ্বেতাঙ্গ লোকেরা তাকে তার বসতির আশেপাশের রেস্তোরাঁয় যেতে এবং যেতে বাধা দেয়। এছাড়াও, তিনি একটি মামলার বিষয়ে আদালতে গেলে ইংরেজ আদালত তাকে পাগড়ি খুলে দেওয়ার নির্দেশ দেয়।

সেই সময়, দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রচুর সংখ্যক ভারতীয় ছিল, তারা বর্ণবাদ দ্বারা মারাত্মকভাবে অপমানিত হয়েছিল। গান্ধী ভারতীয়দের জাগিয়ে তোলেন এবং জুলুর সাথে এজেনজোর বিরুদ্ধে একটি ফ্রন্ট খোলেন। তিনি ভারতীয় মতামত ইন্ডিয়ান ওপিনিয়নের মাধ্যমে ভারতীয়দের জন্য ন্যায়বিচার পাওয়ার চেষ্টাও করেছিলেন।

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ভারতে আসছে

অনেক সফল এবং অসফল প্রচেষ্টার পর, মহাত্মা গান্ধী দক্ষিণ আফ্রিকা ছেড়ে 1915 সালে তার জন্মভূমি ভারতে ফিরে আসেন। ভারতে এসে তিনি নিজের দেশে ভারতীয়দের রাজনৈতিক অর্থনৈতিক দুর্দশা দেখেছিলেন।

ডিভাইড এন্ড রুল নীতি অধ্যয়ন করার পর তিনি অনেক সভায় বক্তব্য রাখেন। সে সময় ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন গোপাল কৃষ্ণ গোখলে। যিনি মহাত্মা গান্ধীর মতের সাথে একমত।

গান্ধীজি সেই সময় প্রতিটি এলাকা ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন যাতে প্রকৃত অবস্থান নির্ণয় করা যায়। এরপর গুজরাটের খেদা ও বিহারের চম্পারণের কৃষকরা তাদের সমস্যা নিয়ে তাদের কাছে পৌঁছান।

ব্রিটিশ সরকার অন্যায়ভাবে তাদের নীল ও আফিম চাষ করত। অনেক আলোচনার পর, গান্ধীজি এই কৃষকদের কণ্ঠস্বর হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন এবং 1918 সালে হাজার হাজার কৃষক ও কৃষক নেতাদের সাথে খেদা চম্পারণ আন্দোলন শুরু করেন।

এই প্রথম লোকেরা মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীকে বাপু এবং মহাত্মা গান্ধী বলে ডাকতে শুরু করেছিল। এই আন্দোলনে, কৃষকদের দাবি, রাজস্ব হ্রাস বৃদ্ধি, কৃষকের তার খামারে সম্পূর্ণ মালিকানা, পাশাপাশি সমস্ত অন্যায্য সম্মতিপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

ব্রিটিশ সরকার খেদা ও চম্পারণের কৃষকদের কণ্ঠস্বর দমন করার সর্বাত্মক চেষ্টা করেছিল।মহাত্মা গান্ধীকেও জেলে বন্দি করা হয়েছিল। কিন্তু কৃষক আন্দোলনের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা ও চাপের কারণে সরকারকে তাদের পদক্ষেপ ফিরিয়ে নিতে হয়েছে।

এই আন্দোলন বিক্ষিপ্ত সমাজে শুধু ঐক্যই আনেনি, মহাত্মা গান্ধীর জনপ্রিয়তাও বৃদ্ধি পেয়েছে। জনগণের মধ্যে এই বিশ্বাস জাগ্রত হয় যে, শান্তিপূর্ণ উপায়ে হলেও সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করে তাদের দাবি আদায় করা যায়।

মহাত্মা গান্ধীর লবণ সত্যাগ্রহ আন্দোলন

ডান্ডি সল্ট মার্চ ছিল গান্ধীজির প্রতিবাদ সমাবেশ ও আন্দোলন। যেখানে হাজার হাজার মানুষ অংশ নেন। এটি 1930 সালের 5 এপ্রিল গুজরাটের ডান্ডি নামক একটি জায়গা থেকে শুরু হয়েছিল।

প্রায় 450 কিলোমিটারের এই যাত্রা শেষ করে মহাত্মা গান্ধী সত্যাগ্রহীদের সাথে নুন বানিয়ে ব্রিটিশ সরকারের সেই লবণ আইন লঙ্ঘন করেন। এই আন্দোলনে ব্রিটিশ সরকারের ভিত পুরোপুরি নড়ে যায়।

12 মার্চ, 1 লাখেরও বেশি মানুষ এটি উত্পাদন এবং বিক্রির সরকারের একচেটিয়া অধিকার লঙ্ঘন করে এবং সরকারকে একটি শক্তিশালী বার্তা দেয়। মহাত্মা গান্ধীর এই আন্দোলনের পর প্রায় ৭০ হাজার মানুষকে জেলে ঢোকানো হয়।

অবশেষে, 1931 সালের মার্চে, আরউইন গান্ধী চুক্তির পর, সমস্ত রাজবন্দীর মুক্তির সাথে, সরকার সমস্ত সত্যাগ্রহীর দাবি মেনে নেয়। এরপর গান্ধী আইন অমান্য আন্দোলন বন্ধ করে দেন।

ডান্ডি লবণ যাত্রা এবং খেদা চম্পারণ ছাড়াও, মহাত্মা গান্ধী অনেক বড় রাজনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলন করেছিলেন, যার কারণে এটি ব্রিটিশ শক্তিকে দুর্বল করতে এবং ভারতীয় আন্দোলনকারীদের বিশ্বাসকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করেছিল। আসুন মহাত্মা গান্ধী জীবনীতে তাঁর কিছু প্রভাবশালী গণ-আন্দোলন সম্পর্কে সংক্ষেপে জেনে নেওয়া যাক।

অন্যান্য আন্দোলন

অসহযোগ আন্দোলন ছিল গান্ধীজীর অন্যতম জনপ্রিয় গণআন্দোলন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর ব্রিটিশ সরকার ভারতে সংবাদপত্রের ওপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এছাড়াও, এটি লঙ্ঘনের জন্য, বিচারিক প্রক্রিয়া ছাড়াই সশ্রম কারাদণ্ডের বিধান করা হয়েছিল। মহাত্মা গান্ধী এই রাওলাট আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেন। এই বিক্ষোভের সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছে পাঞ্জাবে।

সেখানে যারা বছরের পর বছর ব্রিটিশ সরকারের চাকরি করেছেন তাদেরও জেলে রাখা হয়েছিল। মহাত্মা গান্ধীর ডাকে হাজার হাজার যুবক আমৃতসর ও আশেপাশের সব শহরে ধর্মঘট করে। বাজারগুলো স্থবির হয়ে পড়েছিল। সমস্ত সত্যাগ্রহীরা পাঞ্জাবের জালিয়ানওয়ালাবাগ নামক স্থানে শান্তিপূর্ণভাবে জড়ো হচ্ছিল। ব্রিটিশ সরকারের খবর পেয়ে জেনারেল ডায়ারের নির্দেশে ওই নিরীহ মানুষকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ভারতীয় ইতিহাসে এই গণহত্যা জালিয়ানওয়ালাবাগ গণহত্যা নামে পরিচিত ছিল।

সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী এতে চারজন নিহত হয়েছেন। কিন্তু প্রকৃত মৃতের সংখ্যা ছিল দুই হাজারের বেশি। সরকারের এই দমনমূলক মনোভাবের পর মহাত্মা গান্ধী সারা দেশে নাগরিক আন্দোলন শুরু করেন। এই প্রতিবাদের জন্য, যা 1921 সাল পর্যন্ত চলে, সমস্ত ভারতীয় জনগণের কাছে আবেদন করা হয়েছিল যে তারা ইংরেজ চাকরি এবং সেনাবাহিনী সহ কোনও কাজে সহযোগিতা না করবে।

প্রায় চার শতাধিক ধর্মঘটে ১০ লাখেরও বেশি শ্রমিক ও কৃষক জড়িত ছিল। এই আন্দোলন থেকে ভারত স্বাধীনতা না পেলেও ব্রিটিশরা তা বুঝতে পেরেছিল। যে এখন ভারতকে আর বছর ধরে দমন করা যাবে না।

ভারত ছাড়ো আন্দোলন – মহাত্মা গান্ধীর সমস্ত আন্দোলনের মধ্যে ভারত ছাড়ো আন্দোলন ছিল সবচেয়ে প্রভাবশালী, সবচেয়ে ব্যাপক এবং শক্তিশালী আন্দোলনের মধ্যে। সরকারের দমনমূলক মনোভাবের কারণে গান্ধীকে শত্রুতে পরিণত করা হয়েছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শুরু থেকেই এই আন্দোলন শুরু হয়। মহাত্মা গান্ধী এই বিশ্বযুদ্ধের সুযোগ নিতে চেয়েছিলেন। সরকারের ক্ষমতা দুই দিকে বিভক্ত হওয়ায় দেশব্যাপী এ আন্দোলন শুরু হয়।

1857 সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের পর এই প্রথম যখন দেশের স্বাধীনতার জন্য এই গণআন্দোলনে বিপুল সংখ্যক নারীসহ সকল অংশ অংশ নেয়। মহাত্মা গান্ধী এখন পর্যন্ত সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবহৃত সমস্ত উদ্যোগ একসঙ্গে ব্যবহার করেছেন। যেখানে অহিংস সত্যাগ্রহ অমান্যের সাথে সহিংসতাও এই আন্দোলনে ব্যাপকভাবে জড়িত ছিল। গান্ধীর জন্য, এই আন্দোলন ছিল তার চূড়ান্ত পরিণতি। ১৯৪২ সালেই তিনি ডু অর ডাই স্লোগান দিয়েছিলেন।

এ সময় তাকে দুই বছর সশ্রম কারাভোগও করতে হয়। জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর তার স্ত্রী কস্তুরবা গান্ধী এবং মহান বন্ধু ও সহকর্মী মহাদেব দেশাই মারা যান। ডু অর ডাই স্লোগানের পর লাখ লাখ আন্দোলনকারী রাস্তায় নেমে আসে। কোথাও সরকারের সেনাবাহিনীর ওপর হামলা হচ্ছে আবার কোথাও লুটপাট হচ্ছে। বিপুল সংখ্যক জেলে ভাড়ো নীতি থেকে তাদের গ্রেফতার করে। ভারত ছাড়ো আন্দোলন 1943 সাল পর্যন্ত সরকার দ্বারা দমন করা হয়েছিল। কিন্তু সকল বন্দীদের মুক্তি দিয়ে ভারতের পূর্ণ স্বাধীনতার ইঙ্গিতও দিয়েছিলেন।

হরিজন আন্দোলন – ডঃ বাবাসাহেব আম্বেদকর কর্তৃক ভারতের নতুন সংবিধানে মুসলিম ও হিন্দু নির্বাচন ছাড়াও দলিত সম্প্রদায়ের জন্য পৃথক নির্বাচনী এলাকায় সংরক্ষণের দাবি ছিল। ইংরেজ সরকারও এতে সম্মত হয়। কিন্তু এই জাতি বিভাজন বন্ধ করতে সেপ্টেম্বরে মহাত্মা গান্ধী ৬ দিনের অনশন করেন।

সর্বোপরি, তিনটি দল একসঙ্গে এই নতুন ব্যবস্থা ছেড়ে আবার পুরানো পদ্ধতি গ্রহণ করে। মহাত্মা গান্ধী ছিলেন হিন্দু ও অনগ্রসর শ্রেণীর ত্রাণকর্তা। তিনি সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে সমাজে দলিতদের মর্যাদা উন্নয়নে অনেক অক্লান্ত প্রচেষ্টা করেছিলেন। যার মধ্যে একটি ছিল অস্পৃশ্য শ্রেণির মানুষকে এখন থেকে হরিজন নামে ডাকার প্রথা।

মহাত্মা গান্ধীর সমালোচনা

একজন মহান জাতির নায়ক এবং জাতির পিতা হওয়া সত্ত্বেও, মহাত্মা গান্ধীর কাজ করার পদ্ধতি এবং যে কোনও সম্প্রদায়ের কাছাকাছি থাকা এবং কারও সাথে দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়ে মহাত্মা গান্ধীর বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ ও সমালোচনা রয়েছে।

  1. প্রথম দুই বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশ রাষ্ট্রকে সমর্থন করা।
  2. ব্রিটিশদের অত্যাচারী নীতির সামনে সত্য ও অহিংসা অকেজো।
  3. দেশ স্বাধীন হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী পদে নেহরুকে সমর্থন করা।
  4. অসহযোগ আন্দোলন যখন তুঙ্গে তখন ইংরেজ থানায় হামলা থেকে আন্দোলন প্রত্যাহার করুন।
  5. ভারতের স্বাধীনতার পর পাকিস্তানের বিভাজন
  6. দেশভাগে পাকিস্তানকে জোর করে ৫৫ কোটি আর্থিক সাহায্য পেতে অনশনে বসেছেন।
  7. কংগ্রেসের রাষ্ট্রপতি প্রার্থী নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুকে সমর্থন করছেন না।
  8. গান্ধী-আরউইন চুক্তি অনুমোদন করা যা সম্পূর্ণরূপে ব্রিটিশ শাসনের সুবিধার শর্তে ছিল।
  9. সশস্ত্র বিপ্লবীদের হতাশ করা তাদের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

মহাত্মা গান্ধীর মেয়ের নাম

মহাত্মা গান্ধীর জীবনীতে অনেকেই জানতে চান বাপুর মেয়ের নাম কী ছিল। কিন্তু তারা সন্তোষজনক উত্তর পান না। এর কারণ বাপুর কোনো মেয়ে ছিল না। হরিলাল, মণিলাল, রামদাস ও দেবদাস নামে তাদের চার পুত্র ছিল।

গান্ধী তার দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে সবার ছোট ছিলেন। তাঁর বোনের নাম ছিল রলিয়ত এবং দুই ভাইয়ের নাম ছিল লক্ষ্মীদাস ও কৃষ্ণদাস। নন্দ কুনওয়ারবেন, গঙ্গা ছিলেন গান্ধীজির ভগ্নিপতি। আজকের সময়ে, আমরা যদি মহাত্মা গান্ধীর বংশধরদের কথা বলি, তাহলে পৃথিবীর 6টি দেশে 154 জন পরিবারের সদস্য বসবাস করছেন। যার মধ্যে ১২ জন চিকিৎসক এবং ততজন অধ্যাপক রয়েছেন। এরা ছাড়াও প্রকৌশলী, সাংবাদিক, আইনজীবী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট এবং ৫০ জন পিএইচডি ডিগ্রিধারী রয়েছেন।

মহাত্মা গান্ধীর মৃত্যু

1948 সালের 30 জানুয়ারি সময়টা ছিল সন্ধ্যা 5:20। আজ বাপু প্রতিদিনের প্রার্থনা সভায় যেতে একটু দেরি করছিল। তিনি বিড়লা ভবনে সর্দার প্যাটেলের সাথে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেছিলেন, যার কারণে তিনি বিলম্বিত হন।

মহাত্মা গান্ধী আভা ও মনুর কাঁধে হাত রেখে বিড়লা ভবনের দিকে দ্রুত হাঁটছিলেন, তাঁর সঙ্গে কয়েকজন অনুসারীও ছিলেন। তখন নাথুরাম গডসে নামে এক ব্যক্তি তার সামনে আসেন এবং নমস্কারের ভঙ্গিতে মাথা নিচু করে তাকে এগিয়ে যেতে বাধা দেন।

এতে, মনু তাদের সামনে থেকে সরে যেতে বলে, কিন্তু মনুকে ধাক্কা দেওয়ার পরে, সে তার জামাকাপড়ে লুকিয়ে রাখা বেরেটা পিস্তলটি বের করে এবং গান্ধীজির দিকে একের পর এক তিনটি গুলি চালায়। দুটি গুলি তার শরীর দিয়ে যায়, একটি বুলেট তার শরীরে আটকে যায়।

সেই অনুষ্ঠানে পুত্র দেবদাসও এসেছিলেন। 78 বছর বয়সী মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকাণ্ড শুধু ভারতে নয়, সারা বিশ্বে শোকের ঢেউ তুলেছিল। বাপুর উপর এই হামলায়, প্রধান অভিযুক্ত নাথুরাম গডসে সহ আটজন অভিযুক্তের বিচার হয়েছিল, যার মধ্যে বীর সাভারকরেরও নাম ছিল, যাকে আদালত নির্দোষ বলে প্রমাণিত হয়েছিল। গান্ধী হত্যা মামলায় নারায়ণ আপ্তে এবং নাথুরাম বিনায়ক গডসেকে ফাঁসি দেওয়া হয়।

মহাত্মা গান্ধীর জীবন সম্পর্কিত অনুপ্রেরণামূলক গল্প

এই শিরোনাম নিবন্ধে, শ্রদ্ধেয় জাতির পিতা, গান্ধীজীর জীবন সম্পর্কিত একটি গল্প দেওয়া হচ্ছে। এর প্রতি মনোভাব এবং প্রবণতা কী ছিল? বলাই বাহুল্য মহাত্মা গান্ধী খুবই পরিশ্রমী ছিলেন।

কখনো কখনো রাত তিনটায় উঠে দিনে আধাঘণ্টা বিশ্রাম নিতেন এবং রাত দশটা পর্যন্ত কাজ করতেন, মাথায় কাজের চাপ স্থির থাকতো। গোটা দেশের উদ্বেগ মহাত্মা গান্ধীকে এতটাই ব্যস্ত রেখেছিল। তাদের হাসাহাসি করা খুবই দরকার ছিল। একবার একজন সলিসিটর তাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন – গান্ধীজি, আপনারও কি রসবোধ আছে, তিনি সাথে সাথে উত্তর দিয়েছিলেন, ‘যদি আমার রসবোধ না থাকত তবে আমি কখনও আত্মহত্যা করতাম।

ছোট-বড় সবার সঙ্গেই মহাত্মা গান্ধীর রসিকতা চলত। তিনি বিনোদনের জন্য বিশেষ করে শিশুদের সাথে অনেক মজা করতেন। একবার মহাত্মা গান্ধী তাঁর কক্ষে আশ্রমের সমস্ত মহিলাদের একটি সভা করেছিলেন। কথোপকথনের বিষয় ছিল, কেউ তার দত্তক নেওয়া অস্পৃশ্য মেয়েটিকে তার চত্বরে বসিয়ে রান্নাঘর বানাতে শেখাবে। গুরুগম্ভীর কথোপকথন চলে দেড় ঘণ্টা। সমবেত মহিলারা কেউই এই পুণ্য কাজের জন্য প্রস্তুত ছিলেন না। সবাই এক কন্ঠে বললো না।

মহিলারা স্নান, মাথা ন্যাড়া ইত্যাদি ছোটখাটো সেবার জন্য প্রস্তুত হয়েছিলেন, কিন্তু সেই মেয়েটিকে তাদের চত্বরে প্রবেশ করতে দেওয়া গ্রহণযোগ্য ছিল না। পরিবেশটা একটু গম্ভীর হয়ে গেল।মহাত্মা গান্ধী তখন হেসে শুধু এইটুকুই বললেন- “তাহলে এখন আমাকে দীর্ঘ যুদ্ধ করতে হবে”।

এর পরেই তিনি ছোট বাচ্চাদের আক্রমণ করেন যারা তাদের মায়ের সাথে বাপুর কাছে গিয়েছিল। চোখ হারিয়েছে। তিনি একটি শিশুর হাতে একটি পয়সা দেখতে পেলেন।

বাপু এইমাত্র সুযোগ পেল। ছেলেটিকে বললেন, “আরে ভাই, টাকাটা দাও।”

ছেলেটি বলল- “ক্রিম আইস খাও”

বাপু বলল – “আমরা আইসক্রিম পাই না”

ছেলেটি বললো – “আমাদের বাসায় এসো, তোমাকে অনেক খুশি করব”

এর পর বাপু এমন একটা কাজ করলেন, যাতে ‘শু’ শব্দটি এসেছে, যা তিনি বিশ্বাস করেছিলেন।

সেই শিশু “শু” বুঝতে না পেরে সব মহিলা হেসেছিল, বাপুও হেসেছিল।

পরের দিন, যখন ছেলেটির বাবা বাপুর সেবায় উপস্থিত হয়ে ক্ষমা চাইলেন, তখন মহাত্মা গান্ধী হেসে শুধু বললেন, “আরে এই শিশুটি আমার পুরানো বন্ধু” করতেন। মহাত্মা গান্ধী অন্য নারীদের কিছু বলেননি, কিন্তু তাঁর ভাগ্নে মগনলাল গান্ধীর স্ত্রীকে নির্দেশ দিয়েছিলেন, “তুমি তোমার মাতৃগৃহে যাও। তবে ছেলেমেয়েদের উপর ছেড়ে দিন, এমন পুত্রবধূ আমি চাই না। কে আমার মেয়েকে চত্বরে ঢুকতে দেয় না। মিঃ মগনলালের স্ত্রীকে তার বাবার কাছে যেতে হয়েছিল এবং সেখানে সাত মাস থাকতে হয়েছে।

বলাই বাহুল্য তাই তিনি সেই তথাকথিত অস্পৃশ্য মেয়েটিকে রান্নাঘরে নিয়ে যেতে রাজি হয়েছিলেন। আমার হাতে হকি স্টিক ছিল। ওকে নামাজের জায়গার বাইরে রেখে বসলাম। নামায শেষ হলে, হাতে নিতেই বাপু সেখান থেকে বেরিয়ে এলেন। হাসতে হাসতে বললেন-এই লাঠিগুলো খুব শক্ত করে বেঁধে রেখেছ। আমি এটা দিয়েছি।” মাখনলাল চতুর্বেদী এর নাম দিয়েছেন প্রধান স্তোত্র।

বাপু বললেন- হ্যাঁ ও মাথা ভাঙ্গা সত্যাগ্রহ আশ্রমে রাখতে হবে, পাশে দাঁড়ানো লোকেরা হেসে উঠল।

একবার মহাত্মা গান্ধী আমাকে কথোপকথনের জন্য সময় দিয়েছিলেন সকাল সাতটায় এবং সকাল সাতটায়।

আমি তখন নতুন আশ্রমে গিয়েছিলাম। মনে মনে ভাবলাম বাপু খুব কমই যাচ্ছে, দু-চার মিনিট দেরি হলে কি হবে? পৌঁছলাম সাতটা বেজে বারো মিনিটে। বাপু মুচকি হেসে বলল- তোমার সময় হয়ে গেছে। এখন পালাও, সময় ঠিক করে আবার এসো” খুব লজ্জা পেতে হলো। আবার এমন ঘটনা ঘটলেও তাতে আমার কোনো অপরাধ ছিল না। বাপু একজন রাজা সাহেবকে বিকেল তিনটায় সময় দিয়েছিলেন।

আর আমাকে যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল তা ছিল তাদের নিয়ে আসা। তাকে আহমেদাবাদ থেকে আসতে হয়েছিল, মাত্র এক মিনিট দেরি হয়েছিল। আমি রাজা সাহেবকে নিয়ে বাপুর সেবায় পৌঁছলে তিনি বললেন, আমি এক মিনিট থেকে আপনার জন্য অপেক্ষা করছি। মহাত্মা গান্ধী চাকে স্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর বলে মনে করতেন। কিন্তু যাদের চা খাওয়ার অভ্যাস আছে, তাদের জন্যও চায়ের ব্যবস্থা করে দেন।

একবার মিস আগাথা হ্যারিসন নামে এক ভদ্রমহিলা ইংরেজ তার সাথে ভ্রমণে যাচ্ছিলেন এবং তিনি চিন্তিত ছিলেন কিভাবে সকালের চায়ের ব্যবস্থা করা হবে। মহাত্মা গান্ধী যখন এই কথা জানতে পারলেন, তিনি বললেন, “চিন্তা করবেন না, আমি আপনার জন্য আধা পাউন্ড বিষ রেখেছি। একবার বাপু আমার সাথেও চা নিয়ে অনেক রসিকতা করেছিল।

কলকাতা থেকে হেঁটে এসে ওয়ার্ধায় তাঁর সেবায় যোগ দেন। আমাকে রাত সাড়ে ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত সময় দিয়েছেন।

ঠিক সময়ে পৌঁছে আধঘণ্টা ধরে কথাবার্তা চলল।হাঁটতে হাঁটতে মহাত্মা গান্ধী বললেন-“খুব আরামে চা খাও” আমি বললাম-বাপু, আপনি কি আমার চা পানের কথা জানতে পেরেছেন? তিনি বললেন- হ্যাঁ, চাচা, আপনি আমাকে বলেছেন যে আপনি কলকাতায় চা খাওয়া শুরু করেছেন।

আমাকে একটা কৌতুক সাজেস্ট করুন, আমি বললাম- বাপু, আপনি মি. আপনার ছোট ভাই হিসেবে অ্যান্ড্রুজ?

সে হ্যাঁ বলেছে.

“এবং তারা আপনাকে বড় ভাই মনে করে”

বাপু বললেন- হ্যাঁ।

আমি সাথে সাথে বললাম- তাই আমি বড় ভাইয়ের কথা না শুনে ছোট ভাইয়ের কথা মানি,

বাপু হেসে বললেন – “তাহলে আমাকে অ্যান্ড্রুজকে লিখতে দিন যে আপনি কী ভাল শিষ্য পেয়েছেন।

তখন বাপু গম্ভীরভাবে বললো- ‘রাত আড়াইটা থেকে জেগে আছি, এখন নয়টা বাজে, দিনে বিশ মিনিট বিশ্রাম পেয়েছি। আমি অভিভূত ছিলাম. আঠারো ঘণ্টার পরিশ্রমের পরও বাপু কতটা বেঁচে আছেন? যেন তারা আমাদের কাহিলির প্রায়শ্চিত্ত। সন্ধ্যায় যখন মহাত্মা গান্ধী ডাচ-গায়না প্রবাসীদের জন্য বার্তা লিখতে বসলেন, আমি পকেট থেকে ফাউন্টেন পেনটা বের করলাম, তখনই মহাত্মা গান্ধী বললেন- তুমি ফাউন্টেন পেন দিয়ে লিখছ কবে থেকে?

আমি বললাম- অনেক বছর হয়ে গেল।

“কত বছর”

আমি বললাম- ঠিক বলতে পারব না।

তখন মহাত্মা গান্ধী বললেন- দক্ষিণ আফ্রিকায় যখন আমার ফাউন্টেন পেন ছিল, কিন্তু এখন আমি কলম দিয়ে লিখি। ডাচ গায়করা কি বলবে যে তাদের বাড়িতে একটি কলমও নেই? সঙ্গে সঙ্গে ছুরি এবং কলম আহ্বান করা হয়েছিল। কিন্তু আমি যে কাগজটিতে লিখতে গিয়েছিলাম তা একটি ভাল ব্যাক পেপার ছিল।

মহাত্মা গান্ধীজি এই বিস্ময়কর কাগজ কোথা থেকে পেলেন আমরা তা পেতে পারি?

এটা শুধুমাত্র আপনার অফিসের লোকজনের জন্য পাওয়া যায়, যেখানে চাও পাওয়া যায়,

আমরা গরিব মানুষ সাধারণ পানি পান করছিলাম। আমি লজ্জিত ছিলাম

তখন মহাত্মা গান্ধীজি গম্ভীরভাবে বললেন- আমার বার্তা দেশীয় কাগজে লিখুন। আজ আমরা আশ্রমে কার্ড, খামও বানিয়েছি। হাতে তৈরি কাগজ নিয়ে এসেছি এবং মহাত্মা গান্ধীর সেই বাণী নেজে কলম দিয়ে ঘরের কালি দিয়ে লিখেছি। মহাত্মা গান্ধী তাঁর অধীনস্থদের সম্পূর্ণ স্বাধীনতা দিতেন। এবং তারাও তার সাথে রসিকতা করতে দ্বিধা করেনি। আমিও বোকামি করে এসব করতাম।

যখন শ্রী পদ্মজা নাইডুর জন্য সব কফি আইটেম আনা হয়েছিল।

তাই বাপু হেসে বলল – এ সব তোমার জিনিসপত্র।

আমি বললাম- দেখ বাপু, আমি ভোট পাচ্ছি।

“কিভাবে”

আমি বললাম- মহাদেব ভাই চা পান করেন, বম অনেক পান করেন এবং পদ্মজাজীও কফি পান করেন এবং আমি চা খাই, চারটি ভোট হয়।

বাপু তৎক্ষণাৎ উত্তর দিলেন- খারাপ প্রচারের জন্য ভোট খুব কমই লাগে, তা আপনাআপনি ছড়িয়ে পড়ে।

মহাত্মা গান্ধী রসিকতায় পিছিয়ে থাকা মানুষ ছিলেন না। তারা মহান উত্তর ছিল.

একবার বিদ্যাপীঠের অধ্যক্ষ কৃপালানিজি বলেছিলেন- আমরা যখন একে অপরের থেকে দূরে থাকি, তখন আমাদের বুদ্ধি ভালো থাকে, কিন্তু কাছে গেলেই খারাপ হয়ে যায়।

বাপু হেসে বললো – “তাহলে তোমার দুর্বল বুদ্ধির জন্য আমিই দায়ী ছিলাম।”

খুব হাসাহাসি হল, কলকাতায় বাপু কুড়ি মিনিট সময় দিয়েছেন- ভোর চারটে।

আমি একা না গিয়ে 16-17 জন লোক নিয়ে গেলাম। প্রাণে চড়তে শুরু করলে মহাদেব ভাই রেগে গিয়ে বললেন, তুমি আশ্রমে থাকো, কী বেআইনি কাজ করো। কিন্তু মহাত্মা গান্ধী শুধু এতটুকুই বলেছিলেন- আপনি পুরো সেনাবাহিনী নিয়ে এসেছেন।

আমি বললাম- কি করবে, এই লোকগুলো রাজি হলো না, আমি তাদের কাছে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম যে আমি বাপুর দর্শন পাব।

বিশ মিনিট ধরে কথোপকথন চলল, মহাত্মা গান্ধী যখন প্রার্থনার জন্য উঠলেন, আমি বললাম- বাপু, আমি মাসিক চিঠিতে আপনার বিরুদ্ধে অনেক কিছু লিখি” কিন্তু বাপু বললেন- তাই তো ঠিক আছে, কিন্তু কেউ কি শোনে? “প্রত্যেকে হেসেছিল”

মুনি শ্রী জিনবিজয় মহাত্মা গান্ধীর একটি উপাখ্যান বর্ণনা করেছেন। মহাত্মা গান্ধী প্রথমে মোটর থেকে নামলেন কিন্তু কিছুদূর যাওয়ার পর তার মোটরটি কোণে পার্ক করে রাখলেন। দুই মিনিট পর পণ্ডিত মতিলাল জি নেহেরু ও মুনিজির মোটর বের হল, মতিলাল জী ঋষিকে বললেন- দেখলেন? আমার মতে মহাত্মা গান্ধীজি তার মোটর বন্ধ করে দিয়েছেন। হেঁটে তাকে কারণ জিজ্ঞেস করলে, পণ্ডিতজি জিজ্ঞেস করলে মহাত্মা গান্ধী বললেন, “আমি চাইনি তুমি ধূলিসাৎ হয়ে যাও, আমি তোমাকে আরও দিন জীবিত দেখতে চাই।”

কার কাছ থেকে মহাত্মা গান্ধীর শত কৌতুক, চটজলদি এবং সচেতনতা, যা তাঁর ভক্তরা সময়ে সময়ে স্মরণ করে। সেই সাথে তার ঔদ্ধত্যকে যত্ন করে লজ্জাবোধও হয়। তাঁর পবিত্র স্মৃতিতে হাজার বার প্রণাম!- বেনারসীদাস চতুর্বেদী

উপসংহার

আশা করি মহাত্মা গান্ধীর জীবনী – Mahatma Gandhi Biography in Bengali এই নিবন্ধটি আপনার পছন্দ হয়েছে, যদি আপনি এই তথ্যগুলি পছন্দ করেন তবে আপনার বন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here